নগ্ন শরীরে ট্যাটুর প্রদর্শনী ঘিরে মালয়েশিয়ায় বিতর্কের ঝড়

281

ইউএমবি আন্তর্জাতিক ডেস্ক: মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরে শরীরে ট্যাটু আঁকার এক প্রদর্শনী ঘিরে বিতর্কের ঝড় উঠেছে। এই প্রদর্শনীকে ‘অশ্লীল’ অ্যাখ্যা দিয়ে ওই আয়োজনে নিয়ম মানা হয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখতে বিস্তৃত তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন দেশটির একজন মন্ত্রী।

শরীরে ট্যাটু আঁকার ওই প্রদর্শনীতে নগ্ন ও অর্ধনগ্ন নারী-পুরুষের শরীরে আঁকা ট্যাটুর ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হওয়ার পর বিতর্কের ঝড় উঠে। 

দেশটির পর্যটন, শিল্প ও সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রী মোহাম্মদিন কেতাপি বলেছেন, প্রদর্শনীর অনুমতি নেয়ার পর সেখানে কোনো ধরনের নগ্নতার সুযোগ নেই। তিনি বলেন, এই প্রদর্শনী মালয়েশিয়ার সংস্কৃতি নয়, মালয়েশিয়ার সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ মুসলিম।

সম্প্রতি দেশটিতে ইসলামি রক্ষণশীলতা নিয়ে বেশ কিছু বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে। দ্য ট্যাটু মালয়েশিয়া এক্সপো শিরোনামে আয়োজিত এই প্রদর্শনী বিশ্বের ৩৫টি দেশের ট্যাটু শিল্পিীরা অংশ নিয়েছেন। 

২০১৫ সাল থেকে প্রত্যেক বছর এই প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়ে এলেও এবারই প্রথম সরকারি সমালোচনার মুখে পড়েছেন আয়োজকরা। দেশটির সরকার বলছে, ট্যাটু প্রদর্শনীতে এই নগ্নতার কোনো সুযোগ নেই। এর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এক বিবৃতিতে মন্ত্রী কেতাপি বলেন, এ ধরনের অশ্লীল কোনো অনুষ্ঠানের অনুমোদন তার মন্ত্রণালয়ের দেয়া অসম্ভব।

সামাজিকে যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হওয়া ওই প্রদর্শনীর ছবিতে দেখা যায়, শরীরে প্রচুর ট্যাটুযুক্ত অংশগ্রহণকারীরা অর্ধনগ্ন অবস্থায় দাঁড়িয়ে ছবি তুলছেন। মালেশিয়ার গণমাধ্যমে এসব ছবি অস্পষ্ট করে প্রকাশ করেছে।

কেতাপি বলেন, আমরা পুরো তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করবো। নির্ধারিত শর্তের কোনো লঙ্ঘন হয়ে থাকলে আমরা তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে কোনো ধরনের দ্বিধা করবো না।

৩ কোটি ২০ লাখ মানুষের দেশ মালয়েশিয়ায় মুসলিম জনগোষ্ঠীর সংখ্যা প্রায় ৬০ শতাংশ। তবে সমালোচকরা বলছেন, দেশটি আরও বেশি ইসলামি রক্ষণশীলতার দিকে অগ্রসর হচ্ছে। চলতি বছর দেশটির একটি আদালত সমকামিতায় লিপ্ত হওয়ার চেষ্টার দায়ে পাঁচ ব্যক্তিকে জেল, জরিমানা এবং বেত্রাঘাতের সাজা দেন।