সিলেটে প্রধানমন্ত্রীর তহবিল থেকে দরিদ্রদের চিকিৎসায় অনুদান দেয়া অর্থের চেক বিতরণ

678

ইউএমবি ডেক্স: সিলেট জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট  লুৎফুর রহমান বলেছেন, ‘বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের অসহায়, দরিদ্র ও অসুস্থ মানুষের প্রতি সর্বদা আন্তরিক। অসুস্থ মানুষদের সুস্থ করতে চিকিৎসা বাবদ অনুদান প্রদান করা মহতি উদ্যোগ। বর্তমান সরকারের আমলে অসুস্থ মানুষদের চিকিৎসা বাবদ যেভাবে অনুদান দেওয়া হচ্ছে অতীতে আওয়ামী লীগ ব্যতিত কোন সরকার তা দিতে পারেনি।’

প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ তহবিল থেকে বরাদ্দকৃত অর্থ এবং সিলেট জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান আমাতুজ জাহুরা রওশন জেবীন রুবার প্রচেষ্টায় প্রাপ্ত অর্থের অনুদানের চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

 আজ বৃহস্পতিবার (২৬ ডিসেম্বর) দুপুরে জেলা পরিষদ কার্যালয়ে এ চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে অনুষ্টিত হয়।

জেলা পরিষদের সদস্য মোহাম্মদ মতিউর রহমানের সঞ্চালনায় ও জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী প্রধান দেবজিত সিনহার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন রুবা। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সাবেক সাংসদ ও জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সৈয়দা জেবুন্নেছা হক, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট নাসির উদ্দিন খান, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মো. জাকির হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ সুজাত আলী রফিক প্রমুখ।

অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- জেলা পরিষদের সদস্য নুরুল ইসলাম ইছন, মো. শাহনুর, সুষমা সুলতানা রুহি, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট সালমা সুলতানা, দক্ষিন সুরমা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. শামীম, মাধুরী গুণ, আহমেদুল হক চৌধুরী বেলাল, সমাজকর্মী মজির উদ্দিন,  সদর উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাসিনা বেগম, সাধারণ সম্পাদক রোটারিয়ান সাহিদা তালুকদার, হালিমা বেগম, সেলিনা বেগম প্রমুখ।

চেকপ্রাপ্তরা হলেন দক্ষিণ সুরমা উপজেলার লালাবাজার ইউনিয়ন নিশ্চিন্তপুর তালিবপুর গ্রামের  মোহাম্মদ রইছ মিয়া বিশ হাজার টাকা, নগরীর কাাজীটুলা ৮৩/এ এর বাসিন্দা সাহানা খায়ের বিশ হাজার টাকা, জকিগঞ্জ উপজেলা খিলগ্রামের ছায়না বেগম ত্রিশ হাজার টাকা, বিশ্বনাথ উপজেলা শ্রীধর পুর গ্রামের মো. শামির উদ্দিন ত্রিশ হাজার টাকা, দক্ষিণ সুরমা উপজেলা বিরাহিমপুর গ্রামের রেহানা বেগম ত্রিশ হাজার টাকা, জৈন্তাপুর উপজেলা বাউরভাগ দক্ষিণ খুবাং গ্রামের বুরহান উদ্দিন ত্রিশ হাজার টাকা, নগরীর দরগা গেইট আম্বরখানা ওয়েভস আবাসিক এলাকার বাসিন্দা কাজী অলিউর রহমান ৫০ হাজার টাকা, শেখঘাট ৩৪৫-শুভেচ্ছা আবাসিক এলাকার বাসিন্দা কামাল উদ্দিন আহমদ ৫০ হাজার টাকা, বিশ্বনাথ উপজেলার কোনারাই গ্রামের মো. আব্দাল মিয়া ৫০ হাজার টাকা, জকিগঞ্জ উপজেলা পলাশ পুর গ্রামের মোা. আব্দুল মালিক ৫০ হাজার টাকা, জকিগঞ্জ উপজেলা মন্দির খোলা গ্রামের মিনহাজ আহমদ ৫০ হাজার টাকা, দক্ষিণ সুরমা উপজেলার মো. আব্দুল মুকিত লিলু মিয়া ৫০ হাজার টাকা, বিশ্বনাথ উপজেলার জানাইয়া দক্ষিণ মন্ডলা গ্রামের আরান কুমার দেব ৫০ হাজার টাকা।

ওসমানীনগর উপজেলার উমরপুর গ্রামের মো. আনহার আহমদ ৫০ হাজার টাকা, দক্ষিণ সুরমা উপজেলা তেতলী গ্রামের মো. জুয়েল আহমদ ৫০ হাজার টাকা, সদর উপজেলা হেলাখলা গ্রামের ছায়নুল হক ৫০ হাজার টাকা, গোলাপগঞ্জ উপজেলার  করগ্রামের একেএম মাহবুবুছ ছামাদ ৫০ হাজার টাকা, পাঠানটুলা আল সাফা মোহনা ৩৬নং বাসার মো. একলাছ মিয়া ৫০ হাজার টাকা, দক্ষিণ সুরমা উপজেলা তালিবপুর শেখের গ্রাওর মো. জমির উদ্দিন ৫০ হাজার টাকা, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের নবাব রোড নুর মঞ্জিল ১২নং বাসার আম্বিয়া খাতুন ৫০ হাজার টাকা, দক্ষিণ সুরমা উপজেলার বদিকোনা বলদি গ্রামের শিবলী বেগম ৫০ হাজার টাকা, সদর উপজেলার ছালিয়া পশ্চিমপাড়া গ্রামের মো. হুসন আহমদ ৫০ হাজার টাকা, বিশ্বনাথ উপজেলার মহল্লা আল আমিন ভবন নতুন বাজারের শ্রীকান্ত বিরেন্দ্র কান্তি মালাকার ১ লক্ষ টাকা, ওসমানীনগর উপজেলার দয়ামীর জালাল পাড়া গ্রামের মো. ফারুক মিয়া ১ লক্ষ টাকা, জকিগঞ্জ উপজেলা বারহাল গ্রামের পারুল বেগম চৌধুরী ৫০ হাজার টাকা, সিলেট সদর উপজেলা ঘোপাল কান্দি গ্রামের আম্বিয়া বেগম ৫০ হাজার টাকা।