করোনা ভাইরাসে আপনার করণীয়

644

মাওঃএম এ করিম ইবনে মছব্বির:- আক্রান্ত এলাকা পরিহার করা। আমাদের প্রিয় নবী (স) বলেছেন মহামারি আক্রান্ত এলাকায় প্রবেশ করতে ও আক্রান্ত এলাকা থেকে বাহির হতে নিষেধ করেছেন। যাতে রোগ ছড়িয়ে না পরে (বুখারীর শরীফ) বেশি বেশি তাওবা করা, রাসুল (স)বলেছেন যখন কোন জাতীর মধ্যে অশ্লীলতা, পাপাচার দেখা দেয় তখন আল্লাহ তায়ালা সে জাতির উপর তখন এমন সব মহামারী বা দূর্যোগ অবর্তীন করেন। যা পুর্বকার লোকদের মাঝে কখনও দেখা য়ায় নি।(ইবনে মাজহা শরীফ) স্বাস্থ্য বিধ মেনে চলা, হালা উপার্জন খাওয়া, পরিস্কার পরিচ্ছন্ন থাকা ধুমপান পরিহার করা প্রয়োজনে মাস্ক বা মুখোশ ব্যবহার করা।

মুহাম্মদ সাঃ যেকোন কঠিন রোগ এবং মহামারী থেকে বাঁচার জন্য দুআ এবং কর্মপন্থা শিখিয়েছেন। নিচের দোয়া ২টি বেশি করে পড়ুন। আল্লাহ আমাদের সকলকে রোগ থেকে হেফাজতে রাখুন।

দুয়া -১

ﺍَﻟﻠّﻬُﻢَّ ﺇِﻧِّﻲْ ﺃَﻋُﻮْﺫُ ﺑِﻚَ ﻣِﻦْ ﻣُﻨْﻜَﺮَﺍﺕِ ﺍﻷَﺧْﻼَﻕِ ﻭَﺍﻷَﻋْﻤَﺎﻝِ ﻭَﺍﻷَﻫْﻮَﺍﺀِ ﻭَﺍﻷَﺩْﻭَﺍﺀِ।
উচ্চারণঃ
আল্লা-হুম্মা ইন্নী আঊযু বিকা মিন মুনকারা-তিল আখলা-ক্বি ওয়ালআ’মা-লি ওয়ালআহওয়া-ই ওয়ালআদওয়া-‘।
অর্থঃ
হে আল্লাহ! অবশ্যই আমি আপনার নিকট দুশ্চরিত্র, অসৎ কর্ম, কুপ্রবৃত্তি এবং কঠিন রোগসমূহ থেকে আশ্রয় চাচ্ছি।
(সঃ তিঃ ৩/১৮৪, সঃ জামে’ ১২৯৮নং)

দুয়া -২

ﺍَﻟﻠّﻬُﻢَّ ﺇِﻧِّﻲْ ﺃَﻋُﻮْﺫُ ﺑِﻚَ ﻣِﻦَ ﺍﻟْﺒَﺮَﺹِ ﻭَﺍﻟْﺠُﻨُﻮْﻥِ ﻭَﺍﻟْﺠُﺬَﺍﻡِ ﻭَﻣِﻦْ ﺳَﻲِّﺀِ ﺍﻷَﺳْﻘَﺎﻡِ ।
উচ্চারণঃ- আল্লা-হুম্মা ইন্নী আঊযু বিকা মিনাল বারাস্বি অলজুনূনি অলজুযা-মি অমিন সাইয়্যিইল আসক্বা-ম।
অর্থঃ- হে আল্লাহ! অবশ্যই আমি তোমার নিকট ধবল, উন্মাদ, কুষ্ঠরোগ এবং সকল প্রকার কঠিন ব্যাধি থেকে আশ্রয় প্রার্থনা করছি।
(সুনানে আবু দাউদ – ১৫৫৪)

বিছমিল্লাহিল লাজি লা ইয়াজুররু মা আছমিহিশাইয়ন ফিল আরজ্বি ওয়ালা ফিছ ছামাই ওয়া হুয়াছ ছামিউল আলিম।

অর্থঃ আল্লাহর নামে শুরু করছি যার নামে শুরু করলে আসমান জমিনের কোন বস্তুই ক্ষতিসাধন করতে পারবে না আর তিনি শ্রোতা মহাজ্ঞানী ( আবু দাউদ)

সদা সর্বদা মহান আল্লাহ পাকের উপর ভরসা রাখবেন। দুনিয়ার ঔষধ প্রত্র উছিলা মাত্র। এক মাত্র আল্লাহ পাকই আরোগ্য শিফা দানকারী। যদি কারো করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ দেখা দেয় তাহলে সাথে সাথে কাচা পিয়াজ এবং কাচা রসুন সমান্য লবন দিয়ে খাবেন আধা ঘন্টা কোন পানি খাবেন না। গাছ বৃক্ষের নিচে বসে স্বাস প্রশ্বাস নিতে থাকবেন অন্তত আধা ঘন্টা, যদি সংগ্রহে থাকে তা হলে জমজমের পানি পান করবেন। নিয়মিত খেজুর ও ফল খাবেন।বেশি বেশি করে পানি পান করবেন। ৫ওয়াক্ত নামাজে যত্নবান হবেন, নিয়মিত কোরান তেলাওয়াত করবেন । সকল প্রকার হারাম পরিহার করবেন। সকল প্রকার হতাশা বিসন্নতা থেকে মুক্ত থাকুন। মসজিদ ভিত্তিক জীবন গড়ে তুলুন। নিয়মিত কালোজিরা আহার করুন। আল্লাহ পাক আমাদেরকে আসমান জমিনের সকল প্রকার বালা মছিবত থেকে হেফাজত করুন (আমিন)