আগামী সপ্তাহেই যুক্তরাষ্ট্র স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরবে : ট্রাম্প

612

মার্কিন অর্থনীতি পুনরায় চালু করতে তিন স্তরের পরিকল্পনার ঘোষণা দিলেন ট্রাম্প। এই পরিকল্পনার আওতায় আসছে মাসগুলোতে অঙ্গরাজ্যগুলোর অর্থনৈতিক কার্যক্রম পুনরায় চালু করতে গভর্নরদের দিক নির্দেশনা দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। দেশে ভয়াবহ করোনা সংকট সত্তে¡ও তিনটি পর্যায়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার পরিকল্পনা পেশ করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। এর আওতায় কিছু রাজ্য এক সপ্তাহের মধ্যেই স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরতে পারবে। -আল জাজিরা।

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার হোয়াইট হাউসে ‘ওপেন আপ আমেরিকা এগেইন’ পরিকল্পনার ঘোষণায় ট্রাম্প গর্ভনরদের প্রতিশ্রæতি দিয়ে বলেন, কেন্দ্রীয় সরকারের সর্বোচ্চ সহযোগিতায় তারা এই প্রক্রিয়া বাস্তবায়ন করতে পারবেন। ট্রাম্প প্রশাসনের জারিকৃত ১৮ পৃষ্ঠার এই নীতিমালার তিন স্তরের প্রতিটি পর্যায়ের সময়সীমা হবে ১৪ দিন করে। প্রথম স্তরে বর্তমান লকডাউনের আওতায় অপ্রয়োজনীয় ভ্রমণ ও জনাকীর্ণ স্থানে জড়ো হতে না বলা হয়। তবে এতে জানানো হয় রেস্টুরেন্ট, ধর্মীয় স্থান, খেলাধুলোর স্থান কঠোরভাবে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে নিশ্চিত করে চালু করা হবে।

যদি করোনা ভাইরাস সংক্রমণ হার বৃদ্ধির প্রমাণ পাওয়া না যায় তবে দ্বিতীয় স্তরে অপ্রয়োজনীয় ভ্রমণ চালু করে দেয়া হবে। এর আওতায় কক্ষের ধারণক্ষমতার মান রক্ষা করে স্কুল ও বারগুলো খুলে দেয়া হবে। তৃতীয় স্তরের পরিকল্পনায় জনসংযোগের ওপর বিধি-নিষেধ তুলে নেয়া হবে। বার, বৃদ্ধাশ্রম ও হাসপাতালগুলো পুনরায় চালু করে দেয়া হবে।
ট্রাম্প বলেন, ‘আমাদের সামনে পরবর্তী যুদ্ধ হলো আমেরিকাকে পুনরায় চালু করা। আমেরিকানরা আমেরিকাকে পুনরায় চালু হতে দেখতে চায়। জাতীয় শাটডাউন কখনোই দীর্ঘমেয়াদি সমাধান হতে পারে না।’

ট্রাম্প আরো বলেন, ‘দীর্ঘমেয়াদী লকডাউন জনগণের স্বাস্থ্যের ওপর মারাত্মকভাবে প্রভাব ফেলবে। ট্রাম্প মাদক, এ্যালকোহল গ্রহণ, হৃদরোগ ও অন্যান্য শারীরিক ও মানসিক সমস্যা মাত্রাতিরিক্ত হারে বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা প্রকাশ করেন।’
নির্বাচনের বছরে অর্থনীতি দুর্বল হয়ে পড়লে ক্ষমতা ধরে রাখা কঠিন হবে। এমন আশঙ্কায় করোনা সংকট সত্তে¡ও মরিয়া হয়ে দেশে ‘স্বাভাবিক’ পরিস্থিতি ফিরিয়ে আনতে চান মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প। অ্যামেরিকায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃত মানুষের সংখ্যা দ্রæত বেড়ে চললেও তিনি চরম বেকারত্ব নিয়েই বেশি দুশ্চিন্তায় ভুগছেন বলে সমালোচকদের ধারণা।