নির্ঘুম রাত কাটছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার

394

বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এখন নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছেন বলে কয়েকটি অনলাইন গণমাধ্যম সংবাদ প্রকাশ করেছে। করোনাভাইরাস মোকাবেলায় পলিসি নির্ধারণ ও মনিটরিংয়ে ২১ ঘন্টা কাজ করে মাত্র তিন ঘন্টা বিশ্রাম নিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী। এমনটাই বলছে অনলাইন গণমাধ্যমগুলো। এরকম সংবাদের সত্যতা জানার চেষ্টা করেছে প্রতিশ্রুতিশীল অনলাইন গণমাধ্যম usamibanglanews.com

http://usamibanglanews.com/wp-admin/post.php?post=4877&action=edit

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় এবং গণভবনের কয়েকটি সূত্র যারা এই মুহুর্তে নিবিড়ভাবে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কাজ করছেন তাদের কেউই সুনির্দিষ্টভাবে প্রধানমন্ত্রীর নির্ঘুম রাত কাটানোর কোন সুনিশ্চিত তথ্য দিতে না পারলেও করোনার কারনে আগের চেয়েও তিনি অনেক বেশী পরিশ্রম করছেন তা নিশ্চিত করেছেন। নাম ও পরিচয় প্রকাশ না করার শর্তে প্রধানমন্ত্রীর অত্যন্ত ঘনিষ্ট একজন বলেছেন, “আসলে সুনির্দিষ্টভাবে প্রধানমন্ত্রী কতক্ষণ কাজ করছেন বা কতক্ষণ ঘুমাচ্ছেন তা বলা বেশ মুশকিল। কেননা আমাদের প্রধানমন্ত্রী অত্যন্ত বিচক্ষণ রাস্ট্রনায়ক। দৃশ্যত অলস সময় বলতে আমরা যা বুঝি তেমন সময়েও উনি দেশের কথা ভাবেন, জনগণের কল্যানের কথা ভাবেন। নানান বিষয়ে খোঁজ খবরও নেন। 

প্রধানমন্ত্রী সবসময়ই জনকল্যাণে অধিক সময় ব্যয় করে থাকেন। বর্তমান পরিস্থিতিতে তিনি আগের চেয়েও অনেক বেশী সময় দিচ্ছেন। প্রতিটি সূক্ষ সূক্ষ বিষয়ও তার নখদর্পনে। সেই কাকডাকা ভোর থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত বিরামহীন কাজ করে চলেছেন তিনি, দেশের মানুষকে সুস্থ্য রাখার প্রত্যয়ে।”দেশের একজন খ্যাতিমান চিকিৎসক জে নিউজের সাথে আলাপচারিতায় বলেছেন, এখনও হয়তো দেশের করোনা পরিস্থিতির ভয়াবহতা নিয়ে বলার সময় আসেনি। 

তবে প্রধানমন্ত্রীর বিচক্ষনতায় আমরা সারারণ ভয়াবহতার ধারনার চেয়ে অনেক ভালো থাকব। ইনশাল্লাহ।করোনার এই মুহুর্তে চিকিৎসা ব্যবস্থা, ত্রান, খাদ্য, ব্যবসা বাণিজ্য – সব কিছুতেই সুক্ষ নজর রাখছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিচক্ষণতার পাশাপাশি দৃঢ়তা তাকে জনকল্যাণে সিদ্ধান্ত নিতে সাহায্য করছে। পাশাপাশি অন্যায়ের বিরুদ্ধে তাঁর শক্ত অবস্থান তাকে আরো শক্তিশালী করে তুলেছে। এমনটাই মূল্যায়ন কয়েকজন রাজনৈতিক বিশ্লেষকের।

বন্ধুপ্রতিম একটি দেশের একজন সংবাদকর্মী অকপটে শিকার করেছেন, বাংলাদেশে করোনার সার্বিক বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী যেভাবে নজর রাখছেন সেভাবে আর কোন রাষ্ট্র বা সরকার প্রধান রাখছেন কিনা তা ভবিষ্যতে গবেষনার বিষয় হবে। বাংলাদেশে নিযুক্ত এক বিদেশী মিশনের কর্মকর্তা আলাপ চারিতায় জানান, অনেক দেশেই কাজ করেছি। অনেক দেশের সম্পর্কে জানি ও। কিন্তু দেশের মানুষের কল্যাণে এভাবে পরিশ্রম করা, নির্ঘুম রাত কাটানো প্রধানমন্ত্রী আর দেখিনা। শুধু করোনা মোকাবিলা নয় বাংলাদেশের সার্বিক এগিয়ে যাওয়ার পেছনের গল্পটাই হল- শেখ হাসিনা।