বরাবর বিয়ানীবাজারী, আবার আলোচনায় দুবাইয়ে এবার নাসির পেলেন ‘গোল্ডকার্ড’

271

সাত্তার আজাদ :: যে যাই বলুক গোল্ডকার্ড হোক আর হিরের কার্ড হোক সেটার দাবিদার প্রথমেই বিয়ানীবাজারী। এমনটাই চাওয়া এবং অগ্রাধিকার। সারা দেশের মধ্যে সিলেট যেমন সর্বাগে। তেমনি সিলেটের বিয়ানীবাজার দেশ বিদেশে সর্বাগে। আর এমনই আরেক অমূল্য অর্জন করে বিয়ানীবাজারকে বিশ্বের কাছে পরিচিত করে তুলেন, বিশ্বে বিয়ানীবাজারীর মাথা উঁচুতে তুলে ধরেন মাহতাবুর রহমান নাসির। তার এই অর্জনে সেই বিয়ানীবাজার সারা বিশ্বে আবারও আলোচনায়। বিয়ানীবাজারের আদি সভ্যতা সপ্তম দশক থেকে শুরু। সাড়ে ৪ শত বছর আগে বিয়ানীবাজারে ছাপাখানা স্থাপন করে সারা দুনিয়াকে তাক লাগিয়ে দেওয়া হয়েছিল যেমন, তেমনি সেই যুগের ভারতবর্ষের খ্যাতিমান পন্ডিতদের আড্ডা ছিল ওই ছাপাখানাকে ঘিরে। সেই পন্ডিতদের অনেকের জন্মস্থানও এই বিয়ানীবাজারে। এমনই জ্ঞানের অলঙ্করনের ধারাবাহিকতায়, গর্বিত ইতিহাস গড়ার কারিগররা যুগে যুগে জন্ম নেন বিয়ানীবাজারে।  

এবার সংযুক্ত আরব আমিরাত সরকার ঘোষিত দুবাইয়ে থাকা বিনিয়োগকারী, উদ্যোক্তা, বিশেষ প্রতিভা, গবেষক/বিজ্ঞানীরা এবং বিশিষ্ট শিক্ষার্থীদের স্থায়ী বাসস্থান প্রকল্পের আওতায় প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে গোল্ডকার্ড পেলেন এনআরবি ব্যাংকের চেয়ারম্যান ও আল হারামাইন পারফিউম গ্রুপ অফ কোম্পানির চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক সিআইপি মাহতাবুর রহমান নাসির। তার বাড়ি সিলেট জেলার বিয়ানীবাজার উপজেলার চারখাই এলাকায়। তিনি সম্প্রতি সিআইপি (এনআরবি) এসোসিয়েশন এর সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন।

রোববার দুবাইয়ের জিডিআরএফএ সদর দফতরে মোহাম্মদ মাহতাবুর রহমান এবং তাঁর পরিবারের সকল সদস্যকে গোল্ড কার্ড প্রদান করা হয়। সংশিল্ষ্ট বিভাগের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা আলী মোহাম্মদ আল হাম্মাদি ও ল্যাফটেন্যান্ট আবুবকর আহমেদ আল আলী তাঁর হাতে এ সম্মানীয় আবাসিক গোল্ডকার্ড তুলে দেন।