টরন্টোয় যেভাবে খুন হলেন একই পরিবারের চার বাংলাদেশি

686

প্রথমে মা, এরপর নানী, এরপর বোন এবং সবশেষে বাবাকে খুন করেন ২৩ বছর বয়সী অভিযুক্ত তরুণ মেনহাজ জামান। পরিবারের সদস্যদের খুনের বর্ণনা এভাবেই তিনি উল্লেখ করেছেন একটি চ্যাট গ্রুপে।

টরন্টোর সিটি নিউজ সূত্রে জানা যায়, অনলাইন গেম খেলার সময় মেনহাজ সেখানকার অন্য সদস্যদের সঙ্গে খুন করার বিষয়টি জানায় এবং নিহতদের ছবিও পাঠায়।

মেনহাজের সঙ্গে অনলাইন গেমের এক সদস্যের আলাপচারিতা এবং এডভেঞ্চারধর্মী ফ্যান্টাসি গেম ‘পারফেক্ট ওয়ার্ল্ড ভয়েড’ এর এক সদস্যদের সঙ্গে সংযুক্ত থাকার স্ক্রিন শটও প্রকাশ করে সিটি নিউজ।

ওই স্ক্রিন শটের আলাপচারিতায় দেখা যায়, অভিযুক্ত মেনহাজ একে একে তার মা, নানী, বোন এবং বাবাকে হত্যা করে।

জানা যায়, মেনহাজ একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে পড়ত এবং দ্বিতীয় বছরে রেজাল্ট খারাপ হওয়ায় ড্রপ আউট করেছিল। এই ড্রপ আউট তাকে কিছুটা ডিপ্রেশনে নিয়ে যায়। তার মাথায় আসে তার ড্রপ আউটের জন্য তার বাবা-মা অন্যের কাছে ছেলের জন্য লজ্জা পাবে। একই সাথে দীর্ঘদিন যাবত ইন্টারনেট গেমিংয়ে আসক্ত হয়ে পড়ে এবং ওয়েব কিলিং গেম নেটওর্য়াক গ্রুপের সাথে সম্পৃক্ত হয়ে পড়ে।

‘আমি ধীরে ধীরে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ি, নাস্তিক হয়ে পড়ি, এবং ধীরে ধীরে এই খুনের পরিকল্পনা করি’ – অনলাইনের ওই লেখায় উল্লেখ করেন মেনহাজ। জানা যায়, দুই বছর যাবত সে এই হত্যার পরিকল্পনা করে আসছিলো।

মেনহাজের ওই লেখা শেষ হয় এভাবে, ‘এখানে পুলিশ এসে গেছে, বিদায়’।

এদিকে একই পরিবারের ৪ জন খুনের ঘটনায় কানাডার বাংলাদেশিদের মাঝে শোকের ছায়া বিরাজ করছে।